সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ২০১৮ঃ পাকিস্থানকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে বাংলাদেশ

গতকাল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সাফ সুজুকি কাপ এ বাংলাদেশ-পাকিস্তানের মধ্যকার এক শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে বাংলাদেশ পাকিস্তানের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় লাভ করে। বাংলাদেশের পক্ষে একমাত্র গোলটি করেন তপু বর্মন ।

পরপর দুটি ম্যাচে জয়লাভ করে স্বাগতিকরা পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছে। দুটি ম্যাচ জয় করে স্বাগতিকদের পায়েন্ট ৬ এসে দাঁড়িয়েছে। যেটি গ্রুপ পর্বের এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ পয়েন্ট। শ্বাগতিকরা পাকিস্তান এবং নেপালের থেকে তিন পয়েন্ট এগিয়ে আছে। নেপাল এবং পাকিস্তানের পরবর্তী ম্যাচ নির্ধারণ করে দেবে গ্রুপ পর্ব থেকে দ্বিতীয় কোন দলটিউত্তীর্ণ হতে যাচ্ছে। তবে সেমি ফাইনাল নিশ্চিত করতে গ্রুপ পর্ব থেকে পরবর্তী খেলায় নেপালের সাথে বাংলাদেশকে অবশ্যই অন্তত ড্র করতে হবে।

খেলায় ৫ মিনিটের বেশি সময় বাকি থাকতে বিশ্বনাথের এক লম্বা থ্র এর সুযোগে তপুর এক দুর্দান্ত হেডারে বাংলাদেশ পাকিস্তানের বিপক্ষে একটি গোল করেন। আর এই গোল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে উপস্থিত ২০ হাজার দর্শককে জয়ের উন্মাদনায় মাতিয়ে তোলে। গতকালের ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের এটি ছিল জয়সূচক গোল। এছাড়া এই তপু বর্মন ভুটানের বিপক্ষে বাংলাদেশের জন্য একটি গোল করেন।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ২০১৮ঃ পাকিস্থানকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে বাংলাদেশ
Source: MALDIVESOCCER

জয় সূচক গোলটি করার পরে তপু তার জার্সি খুলে উল্লাসে ফেটে পড়েন এবং তার দলের অন্যান্য খেলোয়াড়াও তার সাথে উল্লাস করতে থাকেন। কিন্তু খেলার নিয়ম অনুযায়ী একজন খেলোয়ার খেলা চলাকালীন মাঠের মধ্যে কখনোই তার জার্সি খুলতে পারবেন না, এবং ঠিক তাই যেন জার্সি খুলে তিনি ইরানি রেফারিকে আমন্ত্রণ জানালেন তাকে হলুদ কার্ড প্রদর্শন করার।

কারন নিয়ম অনুযায়ী কোন খেলোয়াড় জার্সি খুলে ফেললে রেফারি তাকে হলুদ কার্ড দেখাবেন। খেলার পরবর্তী ১০ মিনিট বাংলাদেশ ১-০ গোলে পাকিস্তান থেকে এগিয়ে থাকে এর মধ্যে পাঁচ মিনিট অতিরিক্ত সময় ছিল। পরপর দুটি জয়ের অসাধারণ কৃতিত্ব দেখিয়ে বাংলাদেশ দলগতকালের ম্যাচ টি শেষ করে।

চূড়ান্ত বাঁশি বেজে ওঠার পরেই তপু কে ঘিরে তারদলের খেলোয়াড়রা উল্লাস করতে থাকে কারন তার জন্যেই বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত তার নিজের মাটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়ের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পেরেছে।

বেশ কিছু ফুটবল সমর্থক খেলা শেষেও গ্যালারিতে অবস্থান করেন এবং বাংলাদেশ খেলয়াড়দের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ বলে উৎসাহ যোগাতে থাকেন এবং কিছু খেলয়াড়কে দেখা যায় মাঠ ত্যাগ করার পূর্বে ফুটবল সমর্থকদের সাথে সাক্ষাৎ করেতে।

ম্যাচ শুরু হওয়ার পূর্বে বাংলাদেশ দল পাকিস্তানের রক্ষণভাগকে কিভাবে ভেঙে দেয়া যায় তার একটি পরিকল্পনা করেন এবং তারই ফলস্বরূপ বাংলাদেশ দল পাকিস্তানের শিবিরে আক্রমণ করতে থাকে কিন্তু পাকিস্তানের ফুলহাম একাডেমির সাবেক ডিফেন্ডার জিসান রহমান এবং তার দল বাংলাদেশের আক্রমনকে প্রতিহত করতে থাকেন। বাংলাদেশ খুবই কদাচিৎ তাদের প্রতিপক্ষের মাঠে অবস্থান করতে সক্ষম হয়। যে কারণে প্রথমার্ধ বাংলাদেশকে পাকিস্তানের বিপক্ষে বেশ খানিকটা কষ্ট করতে হয়।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ ২০১৮ঃ পাকিস্থানকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে বাংলাদেশ
Source: The Daily Star

জেমি ডে মাটিতে বল রাখার থেকে খেলোয়াড়দেরকে লম্বা পাশে বেশি উৎসাহিত করছিলেন। কিন্তু সেখানেও লাল সবুজের জার্সি পরিহিত ছেলেরা খুব বেশি একটিভালো ফলাফল আনতে পারছিল না। পাকিস্তান শিবিরের আকাশ সীমা বাংলাদেশ ফুটবল দল দখল করতে ব্যর্থ হচ্ছিল।

খেলার ৮ মিনিটের মাথায় পাকিস্তানের কাছে একটি সুবর্ণ সুযোগ আসে বাংলাদেশ থেকে এক গোলে এগিয়ে থাকার। শাহবাজ ইউনূসের কিক থেকে মোহাম্মদ আলীর একটি হেড বাংলাদেশ দলের গোলকিপার শহিদুল আলম শক্ত ভাবে প্রতিহত না করলে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের থেকে পিছিয়ে যেত। জয়সূচক গোল ছাড়াও বাংলাদেশ দলের পক্ষ থেকে জামাল ভূইয়া, সাদ উদ্দিন এবং বিপুল আহমেদ গোল করার জন্য চেষ্টা করেন কিন্তু, পাকিস্তানের গোলকিপার ইউসুফ এজাজ বাট সে গুলোকে শক্ত হাতে প্রতিহত করেন।

৩৮ বছর বয়সি বাংলাদেশি কোচ জেমি ডেকে প্রথমার্ধে দুশ্চিন্তা গ্রস্ত দেখা যায় যখন তিনি লক্ষ্য করেন প্রথমার্ধের অতিরিক্ত ৩ মিনিট শেষ হবার পরেও রেফারি সংকেত দিচ্ছে না, তখন তিনি চতুর্থ রেফারির উদ্দেশ্যে তার হাত উচু করে তিনটি আঙ্গুল দেখিয়ে রেফারি কে বোঝাতে চেষ্টা করেন যে অতিরিক্ত তিন মিনিট শেষ হয়ে গেছে।

দ্বিতীয় আর্ধের পর বাংলাদেশকে আরও সংঘবদ্ধভাবে খেলতে দেখা যায়। স্বাগতিকরা বিপদে পড়ার হাত থেকে বেঁচে যায় যখন ডিফেন্ডার টুটুল হোসেনের কাছ থেকে পাকিস্তানের মোহাম্মদ আলী বল কেড়ে নিয়ে খেলার ৫৫ মিনিটের সময় বাংলাদেশ এর গোল পোস্ট লক্ষ্য করে তার একটি দুর্দান্ত শট খেলেন কিন্তু বাংলাদেশ দলের গোলকিপারে সেটিকে শক্ত হাতে প্রতিহত করে।

পরবর্তীতে খেলার ৮২ মিনিটের মাথায় তপু বাংলাদেশের পক্ষ হয়ে গোল করার একটি সুযোগ পায়। পাকিস্তান দলের 6 ইয়ার্ড বক্সের ভেতর থেকে নেওয়া শটটি পাকিস্তানের ডিফেন্ডার প্রতিহত করেন, এবং ঠিক তার তিন মিনিট পরেই তপু সংশোধিত গোলটি করেন।

, , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,