বিশ্বকাপ ২০১৮: গ্রুপ সি এর পূর্ব পর্যালোচনা, পর্ব ২ (ডেনমার্ক, অস্ট্রেলিয়া)

ডেনমার্ক

বর্তমান ফিফা র‍্যাঙ্কিং: ১২

বিশ্বকাপে উপস্থিতি: ২০১৮ সালে ৫ম বারের মত

বিশ্বকাপ ২০১৪: কোয়ালিফাই করতে পারে নি

বিশ্বকাপ ২০১৮: গ্রুপ সি
Source: South West Londoner

১৯৮৬ সালে প্রথম বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পাওয়া ড্যানিশরা তৎকালীন সময়ে ‘ড্যানিশ ডিনামাইট’ নামে ফুটবল বিশ্বে পরিচিতি লাভ করে। যদিও ১৯৯২ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়ন ড্যানিশরা ১৯৯৮ এর বিশ্বকাপে কোয়াটার ফাইনাল খেলা ছাড়া বিশ্বকাপে ডিনামাইট সুলভ তেমন কিছুই করতে পারে নি। তবে স্ক্যান্ডিনেভিয়ান অঞ্চলের ফুটবল পরাশক্তিদের মধ্যে ড্যানিশদের উপস্থিতি বরাবরই ছিল।

ইউরোপের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ই গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় হয়ে প্লে অফ খেলার সুযোগ পায় ড্যানিশরা। আর প্লে অফের শেষ ম্যাচে আইরিশ দের ৫-১ এ উড়িয়ে দিয়ে সেই সুযোগের সর্বোচ্চ সদ্ব্যবহার করে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে যায়গা করে নেয় ড্যানিশরা।

যার নামের কারনে ডেনমার্ক এবারের বিশ্বকাপে অন্যান্য দলের কাছ থেকে সমীহ আদায় করে নেবে তিনি হলেন ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন। টটেনহ্যাম হটস্পারের এই মিডফিল্ডার তাঁর দক্ষতা আর কার্যকারিতা দিয়ে ফুটবল অঙ্গনে নিজেকে খুব ভাল ভাবেই প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

ডেনমার্ক বিশ্বকাপ স্কোয়াড
Source: 101greatgoals.com

তিনি ছাড়াও মাঝমাঠের দায়িত্বে থাকছেন অভিজ্ঞ উইলিয়াম কেভিস্ট। তরুণ উইঙ্গার পাওনি সিসটো কে নিয়েই কোচ এজ হ্যারেইড আক্রমণভাগটা সাজাবেন বলে মনে হচ্ছে। আর গোল বারের নিচে বাবা পিটার শিমাইকেল যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবেই নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন গোলকিপার ক্যাস্পার শিমাইকেল।

ডেনমার্ক বিশ্বকাপ স্কোয়াড

২৩ সদস্যের চূড়ান্ত দল ঘোষণা করতে এখনো বাকি আছে। এই হল তাঁদের প্রাথমিক দল।

গোলকিপার: ক্যাসপার শিমাইকেল (লিচেস্টার), ফ্রেডেরিক রোনাওউ (ব্রান্ডবি), জনস লসেল (হুডসফিল্ড), যিশ্ফার হ্যানসেন (এফসি মিডটজিল্যান্ড)।

ডিফেন্ডার: সাইমন কেজিয়ার (সেভিয়া), আন্দ্রিয়াস বিজিল্যান্ড (ব্রেন্টফোর্ড), ম্যাথিয়াস জরগেনসেন (হাডার্সফিল্ড), আন্দ্রিয়াস ক্রিস্টেনসেন (চেলসি), হেনরিক ডালসগার্ড (ব্রেন্টফোর্ড), জেনিক ভেস্তেরগার্ড (বরুসিয়া মোখেনগ্লাডবেচ), জেনস স্ট্রেইগার লারসেন (উদিনেস), জোনাস নুদসেন (ইপসউইচ), নিকোলাই বোলেসেন, পিটার অংকারসেন (উভয়ই এফসি কোপেনহেগেন), রিজা দুরমিসি (রিয়াল বেটিস)।

মিডফিল্ডার: ক্রিস্টিয়ান এরিকসেন (টটেনহ্যাম), ড্যানিয়েল ওয়াজ (সেল্টা ভিগো), লেস শন (অ্যাজাক্স আমস্টারডাম), লুকাস ল্যারেঞ্জার (বোর্দো), ম্যাথিয়াস জেনসেন (নোর্দসজিল্যান্ড), মাইকেল রোহন-দেহলি (দেপোর্তিভো লা করুনা), মাইক জেনসেন (রোজেনবার্গ), পিয়ের-এমিল হজ্বজরগার (সাউদাম্পটনের), টমাস ডিলানি (ওয়ারার ব্রেমেন), উইলিয়াম কেভিস্ট (এফসি কোপেনহেগেন)।

ফরোয়ার্ড: আন্দ্রিয়াস কর্নেলিয়াস (এ্যাটলান্টা), ক্যাস্পার ডলবার্গ (অ্যাজাক্স), কেনেথ জহর (কার্ডিফ সিটি), মার্টিন ব্রেথওয়েট (বোর্দো), নিকলাস বেন্ডটনার (রোজেনবার্গ), নিকোলাই জরগেনসেন (ফেইনোর্ড), পাওনি সিস্তো (সেল্টা ভিগো), রবার্ট স্কভ, ভিক্টর ফিশার (উভয়ই এফসি কোপেনহেগেন), ইউসুফ পলসেন (আরবি লিপজিগ)।

এবারের আসরে নিজেদের ডিনামাইট নামের সার্থকতা কতটুকু প্রমাণ করতে পারে ড্যানিশরা সেটাই দেখার বিষয়।

অস্ট্রেলিয়া

বর্তমান ফিফা র‍্যাঙ্কিং: ৪০

বিশ্বকাপে উপস্থিতি: ২০১৮ সালে ৫ম বারের মত

বিশ্বকাপ ২০১৪: গ্রুপ পর্যায়ে বাদ

অস্ট্রেলিয়া
Source: Classic Cinemas

২০০৬ সালে ৩২ বছর পর বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়া সকারুজরা এবার তাঁদের টানা ৪র্থ বারের বিশ্বকাপ অভিজানে রাশিয়া যাচ্ছে। আর এই রাশিয়া যাত্রার পথে বিশাল এক ইতিহাসই রচনা করে ফেলেছে তাঁরা।

রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকেট পাওয়ার আগে সকারুজদের ২২ টি বাছাই ম্যাচ খেলতে হয়েছে। যেটি বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়ার ক্ষেত্রে বাছাই ম্যাচের বিশ্ব রেকর্ড। শুধু তাই নয়, মোট ১১ টি আলাদা প্রতিপক্ষের বিপক্ষে ম্যাচগুলো খেলতে তাঁদেরকে প্রায় ২৫০০০০ কি.মি. পথ পাড়ি দিতে হয়েছে। সবশেষে প্লে অফে হন্ডুরাসকে হারিয়ে নিশ্চিত হয় রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকেট।

প্রতিভাবান এ্যারন মোয়কেই অস্ট্রেলিয়ার বর্তমান দলের সবচেয়ে সেরা খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে নিজেকে প্রমানের জন্যে বিশ্বকাপের থেকে ভাল উপলক্ষ আর কিইবা হতে পারে তার জন্যে। এছাড়াও ইঞ্জুরির কারনে দীর্ঘ বিরতির পর ফিরে এসে প্লে অফে হন্ডুরাসের সাথে হ্যাট্রিক করা মিল জেডিনাকও নিজের উপস্থিতির কথা জানান দিয়েছেন।

প্রাথমিক দলে নাম থাকা ৩৮ বছর বয়সী টিম কাহিল বিশ্বকাপের মূল স্কোয়াডে যায়গা পাবেন কিনা সেটা এখনো বোঝা যাচ্ছে না।

Aaron Mooy
Source: 90Min

অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ স্কোয়াড

২৩ সদস্যের চূড়ান্ত দল ঘোষণা এখনো বাকি থাকলেও অস্ট্রেলিয়ার প্রাথমিক দলে যারা আছেন তাঁরা হলেন

গোলকিপার: ব্র্যাড জোন্স (ফেইনোর্ড), মিচ ল্যাঞ্জারক (নাগোয়া গ্রাম্পাস), ম্যাট রায়ান (ব্রাইটন), ড্যানি ভুকোভিচ (জেনক)।

ডিফেন্ডার: আজিজ বেহাইচ (ব্রুসসপার), মিলোস ডিজেনেক (ইয়োকোহামা এফ মারিনস), অ্যালেক্স গারস্যাচ (আরসি লেন্স), ম্যাথিউ জারম্যান (সুওয়ান স্যামসাং ব্লু উইংস), ফান করাকিক (এন কে লোকোমোটিভা), জেমস মেরিডিথ (মিললভ), জোশ রিসন (ওয়েস্টার্ন সিডনি), ট্রেন্ট শ্যানসবারি (টাওয়ার হপার জুরিখ), আলেকজান্ডার সুসজ্জার (এফকে ম্লেদা বোলেভেল), বেইলি রাইট (ব্রিস্টল সিটি)।

মিডফিল্ডার: জোশ ব্রিলেন্ট (সিডনি এফসি), জ্যাকসন ইরেভিন (হুল সিটি), মাইল জেদিনাক (অ্যাস্টন ভিলা), রবি ক্রুক (ভিএফএল বোচাম), মেসিমো লুংগো (কুইপিআর), মার্ক মিলিনান (আল-আহলি), এ্যারন মোয় (হুডসফিল্ড) টম র্যাগিঙ্ক (সেল্টিক), জেমস ট্রোসি (মেলবোর্ন বিজয়), টিম কাহিল (মিলল)।

ফরোয়ার্ড: ড্যানিয়েল আর্জানি (মেলবোর্ন সিটি), এপোস্টোলোস গিয়ানিউ (এ.ই.কে লারনাকা), টমী জুউরিক (লুজারেন), ম্যাথু লেইকি (হার্থা বার্লিন), জেমি ম্যাকলারেন (হাইবারিয়ান), এন্ড্রু নববাট (উরাওয়া রেড ডায়মন্ডস), দিমিত্রি পেট্ররাস (নিউক্যাসল জেটস) নিকিতা রকভিস্তিয়া (ম্যাককবি হাইফা)

ক্রিকেটের সর্বকালের অন্যতম সেরা অজিরা ফুটবলে সকারুজ হয়ে এই বিশ্বকাপে কতদূর যেতে পারবে তা সময়ই বলে দেবে।

, , , , , , , ,