বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজঃ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম জয়টি কার ?

আগামী রবিবার বাংলাদেশের সাথে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে জয়ের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ উন্মুখ হয়ে আছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ বাংলাদেশের সাথে দুটো টেস্ট ম্যাচেই জয়লাভ করেছে। অন্যদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে বাংলাদেশ একটির পর একটি ম্যাচে শুধু হেরেই চলেছে। তাই এখন বাংলাদেশও তাদের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয়ের একটি আশা দেখছে। চলুন তাহলে দেখে আসা যাক ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং বাংলাদেশ এই দুই দলের দুর্বলতা এবং শক্তিশালী দিকগুলো। এবং কোন দল রবিবারের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে জয়লাভ করতে যাচ্ছে তার একটি আগাম ধারণা আপনাদের দেওয়ার চেষ্টা করব।

Source: News Bangladesh

 

ওয়েস্টে ইন্ডিজের সবল এবং দুর্বল দিক গুলোঃ

এখন পর্যন্ত এই বছরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের নিজেদের দেশে যতগুলো টেস্ট ম্যাচ খেলেছে সবকটিতেই প্রায় তারা জয়লাভ করেছে। তারা এখন পর্যন্ত নিজেদের মাটিতে পাঁচটি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে এবং তার মধ্যে তিনটিতেই জয়লাভ করেছে। আর একটিতে ড্র হয়েছে এবং অন্যটিতে তারা পরাজিত হয়েছে। নিজেদের মাটিতে তারা খুবই লড়াকু এবং যেকোন শক্তিশালী দলকে তারা হার মানাতে সক্ষম। জেসন হোল্ডার টেস্ট সিরিজেও যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে ঠিক সেভাবেই ওয়ানডে সিরিজেও দলকে নেতৃত্ব দিয়ে আরেকটি বিজয় এনে দিতে চায়। ওয়ানডে সিরিজে তারা ক্রিস গেইল এবং আন্দ্রে রাসেল এর মতশক্তিশালী ব্যাটসম্যানকে পাবে। এবং এই মনোভাবই তাদেরকে ওয়ানডে সিরিজেভালো করতে সাহায্য করবে।

এতক্ষণ তো দেখলাম ওয়েস্ট ইন্ডিজের শক্তিশালী দিকগুলো, এখন আসুন তাদের দুর্বল দিকগুলো নিয়ে একটু ভাবা যাক। ওয়েস্ট ইন্ডিজ শুরুটা ভালো করলেও মাঝামাঝিতে গিয়ে তেমন একটা ভাল খেলে প্রদর্শন করতে পারেনা। যেটা আমরা আইসিসি বাছাই পর্বে তাদের ফাইনাল খেলা টা দেখলেই বুঝতে পারি। পুরো বাছাইপর্বে তারা একটা আধিপত্য বিস্তার করলেও শেষমেশ ফাইনালে গিয়ে আফগানিস্তানের কাছে তারা পরাজিত হয়। তাই এটা ধারণা করা একটু মুশকিল যে তারা ওয়ানডে ম্যাচে কেমন করবে করবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের উচিত ব্যক্তিগত অবদানের দিকে না ঝুঁকে দলীয় গত ভাবে একটি ভালো খেলা উপহার দেওয়া, তাতে করে তারা বাংলাদেশ দলকে প্রতিহত করতে সক্ষম হতে পারে।

Source: The Independent BD

 

বাংলাদেশের সবল এবং দুর্বল দিক গুলোঃ

মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, এরা সবাই বাংলাদেশের জন্য ওয়ানডে সিরিজের আশীর্বাদ হিসেবে কাজ করবে। এই ওয়ানডে সিরিজে তারাই বাংলাদেশের জন্য সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হিসেবে কাজ করবে। যেহেতু তারা দলের সব থেকে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় তাই তাদের উচিত হবে দায়ীত্তের সাথে বাংলাদেশ টিম টিকে আরো সঙ্ঘবদ্ধ এবং শৃংখলাবদ্ধ ভাবে নেতৃত্ব দেওয়ার। তামিম ইকবাল, লিটন দাসের মতো খেলোয়াড়রা খুব দ্রুত খেলায় মোড় ঘুরিয়ে দেয়ার মত সক্ষম। তাই তাদের উপরেও হারজিত অনেকটাই নির্ভর করবে।

বাংলাদেশের একটি সমস্যা রয়েছে আর সেটা হচ্ছে তারা বেশিরভাগ সময়ে শেষ অব্দি তাদের ভালো খেলাটাধরে রাখতে পারে না। বিগত দিনের খেলা গুলো দেখলে আমরা যেটা পরিষ্কার দেখতে পাই তা হচ্ছে বেশিরভাগ সময়ে বাংলাদেশ যখন জয়ের কাছাকাছি থাকে ঠিক তখনই তাদের ছোট খাটো কিছু ভুলের কারণে তাদের হাতের মুঠো থেকে জয় বের হয়ে যায় এবং তাদেরকে পরাজয় মেনে নিতে হয়। বিগত বেশ কিছু খেলায় বাংলাদেশের সাথে এরকম কিছু হয়েছে এবং শেষমেশ তাকে পরাজয় মেনে নিতেই হয়েছে। আর এটার প্রধান কারণ হচ্ছে তারা তাদের খেলায় ধারাবাহিকতাটা বজায় রাখতে সক্ষম হয় না। এজন্য বিজয়ী হওয়ার স্বপ্নটা তাদের স্বপ্নই রয়ে যায়।

Source: Youtube

 

পরিশেষে বলা যায় যেহেতু ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে খেলা হচ্ছে তাই নিজের দেশের সাপোর্ট তারা একটু বেশি পাবে। অন্যদিকে টেস্ট সিরিজের হার ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশ দলের মধ্যেজয়ের জন্য রসদ যোগাবে।

বাংলাদেশ ওয়ানডে দল:

মাশরাফি বিণ মুর্তজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল,এনামুল হক, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, মাহমুদুল্লাহ,মোসাদ্দেক হোসেন, নাজমুল হোসেন শান্ত, মেহেদী হাসান, নাজমুল ইসলাম,রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, আবু হায়দার রনি, এবং আবু যায়েদ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওয়ানডে দল:

জেসন হোল্ডার, দেবেন্দ্র বিশ্ব, ক্রিস গেইল, সিমরন হেটমায়ার,সাঁই হোপ,আলযারি জোসেফ,এভিনলূইস, জেসন মোহাম্মদ, এসলী নার্স,কিমোপল,রভম্যানপয়েল, কিয়েরানপয়েল,আন্দ্রেরাসেল।

 

, , , , , , , , , , , , , , , ,