ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত

কথা রাখলো পগবা-গ্রিজমানরা। সেমি ফাইনালের পারেই নিজেদের জার্সিতে আরো একটি তারকা যোগ করার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তাঁরা, সেটা তাঁরা পালনও করেছে। দিদিয়ের দেশমের শিষ্যরা  দীর্ঘ ২০ বছর পরে আবারো বিশ্বকাপের শিরোপা এনে দিয়েছে ফরাসিদের ঘরে। আর ইতিহাসে প্রথমবারের মত ফাইনাল খেলতে আসা ক্রোয়েশিয়া ফিরছে অশ্রুসিক্ত নয়নে।

৪-২ গোলে ফাইনাল জিতে শিরোপা ঘরে তোলা ফরাসিরা মাঠের পারফর্মেন্সে কতটা আলো ছড়াতে পেরেছে সেটা নিয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে। তবে সেই বিতর্কে তাঁদের শিরোপা উৎসবের কিছুই যায় আসে না। আসলে বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে যতটা রঙ থাকা উচিৎ ছিল গতকালের লুঝনিকি স্টেডিয়ামের ফাইনালে তার পুরোটাই ছিল।

ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত
Source:  Evening Standard

ম্যাচের দুই অর্ধে তিনটে করে গোল, তার মধ্যে একটি আত্নঘাতী, একটি ভিআর পেনাল্টি, একটি গোলকিপারের হাস্যকর ভুল, আর দুটি চোখে লেগে থাকার মত গোল। ফুটবলের জন্যে এ যেন এক প্যাকেজ শো। আর সেই প্যাকেজ শো এর শেষে বিজয়ী দলের নাম ফ্রান্স। ফ্রান্সের পাশাপাশি ইতিহাসে অমর হয়ে থাকলেন ফরাসি কোচ দিদিয়ের দেশমও। মারিও জাগালো বা ফ্রেন্স বেকেনবাওয়ারের পর মাত্র তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে তিনি খেলোয়াড় আর কোচ দুই ভুমিকাতেই বিশ্বকাপ শিরোপা জিতলেন।

ম্যাচের প্রথমার্ধে ক্রোয়েশিয়া একাই খেলেছে বলে কারো মনে হলে সেটা ভুল হবে না। কারন বলের ৬৭% দখল আর প্রতিপক্ষের গোলে ৫ টি শট আর ২ টি অন টার্গেট। বিপরীত দিকে ফ্রান্সের শট একটিই।

সে যাই হোক, প্রথমার্ধে ২-১ এ এগিয়ে যায় ঐ ফরাসিরাই। কিন্তু সেটা কিভাবে?

ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত
Source: The Sun

ম্যাচের প্রথম গোলটি আসে ১৯ তম মিনিটে। ক্রোয়েশিয়ার বক্সের বাইরে ফ্রি কিক আদায় করেন গ্রিজমান, আর সেই গ্রিজমানের নেওয়া ফ্রি কিক গোলে ঢোকার আগে লেগে যায় মারিও মানজুকিচের মাথায়। বিশ্বকাপের ফাইনালে এই প্রথম আত্নঘাতী গোল করে অনাকাঙ্ক্ষিত ভাবে ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নেনে মানজুকিচ। এর ঠিক ৯ মিনিট পরেই অসাধারণ এক গোল করে দলকে সমতায় ফেরান ক্রোয়েশিয়ার ইভান পেরিসিচ।

এই দুর্দান্ত পেরিসিচই ম্যাচের ৩৪ তম মিনিটে বনে যান “অভাগা” পেরিসিচ। গ্রিজমানের কর্নার ঠেকাতে বক্সের মধ্যে লাফিয়ে ওঠেন তিনি। কিন্তু মাতুইদির মাথায় লেগে বল গিয়ে আঘাত করে পেরিসিচের হাতে। সাথে সাথেই হ্যান্ডবলের আবেদন করেন ফ্রান্সের খেলোয়াড়েরা। সেই আবেদনকে বিবেচনায় নিয়ে ভিআর এর সাহায্যে টিভি রিপ্লে দেখে পেনাল্টি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেনে আর্জেন্টাইন রেফারি।

সেই পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে ২-১ গোলের লিড এনে দেন গ্রিজমান। গ্রিজমান গোল করেছেন এমন কোন ম্যাচে এখন পর্যন্ত হারেনি ফ্রান্স। এই পরিসংখ্যাকে সঙ্গী করেই প্রথমার্ধের বিরতিতে যায় ফরাসিরা।

ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত
Source: Goal.com

এরপরে, দ্বিতীয়ার্ধের ৫৯ তম মিনিটে অসাধারণ এক গোলে ফরাসিদের জয়টা মোটামুটি নিশ্চিত করে ফেলেন পগবা। ক্রোয়েশিয়ার বক্সের সামনে বল পেয়ে প্রথমে ডান পায়ের শট নেন, সেই শট ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে বল আবার তাঁর পায়ে ফিরে আসে। এবার আবার বাম পায়ে জোরালো শট নেন তিনি, সেই শট বিনা বাধায় ক্রোয়াট গোলকি সুবাসিচকে ফাঁকি দিয়ে জড়ায় জালে।

এর ঠিক ৬ মিনিট পরে, ম্যাচের ৬৫ তম মিনিটে আবারো ক্রোয়েশিয়ার জালে বল জড়ায় ফ্রান্স। এবার স্কোরশিটে নাম লেখান এমবাপ্পে। লুকাস হার্নান্দেজের কাছ থেকে বক্সের বাইরে বল পেয়ে মাটি কামড়ানো শটে বল পাঠান জালে, আর এতেই ৪-১ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে বিশ্বকাপ শিরোপা নিশ্চিতই হয়ে যায় লা ব্লুজদের।

আর ব্রাজিলীয়ান কিংবদন্তী পেলের পরে দ্বিতীয় টিন এজার হিসেবে বিশ্বকাপের ফাইনালে গোল করার অনন্য কৃত্তি গড়েন মাত্র ১৯ বছর বয়সী ফরাসি এই ফরোয়ার্ড। যদিও পেলে ১৯৫৮ সালে সুইডেনের সাথে মাত্র ১৭ বছর বয়সে গোল করে দলকে প্রথম শিরোপা এনে দিয়েছিলেন।

ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত
Source: NESN.com

এই গোলের পরে ম্যাচের ফলাফল যখন নিশ্চিত হয়ে গেছে তখনো ম্যাচের নাটকের কিছু অংশ বাকি ছিল। ৬৯ তম মিনিটে  হাস্যকর এক ভুল করে গোল খেয়ে বসেন ফ্রেঞ্চ গোলকিপার ও অধিনায়ক হুগো লরিস। এমনকি ম্যাচ শেষে এই গোলের রিপ্লে দেখে নিজেই হেসেছেন ফরাসি অধিনায়ক।

সতীর্থের ডিফেন্ডারের কাছ থেকে ব্যাক পাস পেয়ে তা আবার সেই ডিফেন্ডারকেই দিতে যান তিনি। কিন্তুই ততক্ষনে তার সামনে চলে আসেন ক্রোয়াট স্ট্রাইকার মারিও মানজুকিচ। এগিয়ে আসা মানজুকিচকে কাটাতে গিয়েই বিপদ ডেকে আনেন লরিস। তাঁর উদ্দেশ্য ধরতে পেরে বলের লাইনে পা বাড়ান মানজুকিচ, বল তাঁর পায়ে লেগে ঢুকে যায় জালে।

ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত
Source: BusinessDay Media – Online | Print | TV | Podcast.

এই গোলের পরে ইতিহাসে আরো পাকাপাকিভাবে ঢুকে যান মানজুকিচ। ফাইনালে একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে দুই দলের পোস্টে গোল করার অনন্য “রেকর্ড” গড়েন তিনি।

এই গোলের পরে ম্যাচের আর মাত্র ২১ মিনিট বাকি ছিল। আর সেই ২১ মিনিটে গোলের জন্যে আপ্রাণ চেষ্টা করে যায় ক্রোয়েশিয়ার মদরিচ-রাকিতিচ-মানিজুকিচরা।

কিন্তু সেই অসম্ভবের তাড়া আর পেরে ওঠেনি তাঁরা।

বরঞ্চ আরো গোল খেতে বসেছিল। পগবা ম্যাচের সবচেয়ে সহজ গোলের সুযোগটা হাত ছাড়া না করলে হয়তো ১৯৫৮ সালের পরে আবারো ফাইনালে ৫-২ গোলের স্কোরলাইন দেখতে পেত ফুটবল বিশ্ব। তবে গত ৫২ বছরের ইতিহাসে এই ৪-২ স্কোরলাইনই ফাইনালের সবচেয়ে বড় স্কোর লাইন।

ফিফা বিশ্বকাপ ফাইনাল ২০১৮: ফরাসি আলোয় আলোকিত লুঝনিকির বৃষ্টি ভেজা রাত
Source: Getty Images

ম্যাচ শেষে যখন ফরাসিরা নিজেদের দ্বিতীয় শিরোপার উল্লাসে মত্ত, তখন মাঠের অন্য দিকে হতাশার প্রতিচ্ছবি ফুটে ওঠে ক্রোয়েশিয়ার খেলোয়াড়দের মুখে। আসলে এটাই তো নিয়তি। খেলার শেষে একটি দল আনন্দ করবে, আরেকটি দল চোখে থাকবে পরাজয়ের কান্না। যদিও এই কান্না অন্য দশটি পরাজয়ে কান্না থেকে শতগুণ বেদনাদায়ক।

সবকিছুর শেষে যখন জয়ী দলের হাতে শিরোপা তুলে দেওয়ার সেই অন্তিম মূহুর্তটি আসে তখনি মস্কোর আকাশ ভেঙে নামে অঝোর ধারায় বৃষ্টি। এই বৃষ্টি যেন বিশ্বকাপের এক মাসের ক্লান্তি ধুয়ে মুছে নতুন রাজাকে বরণ করে নেওয়ার প্রতিক।

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্যে প্রাণঢালা  অভিনন্দন ফ্রান্স দলকে, আর ক্রোয়েশিয়াকেও ধন্যবাদ অসাধারণ খেলা উপহার দেয়ার জন্যে। অবশ্য রাশিয়াকেও বিশেষ ধন্যবাদ দিতেই হয় সারা বিশ্বকে অনন্য ও অসাধারণ একটি বিশ্বকাপ উপহার দেওয়ার জন্যে।

, , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,