জমজমাট এক লড়াইয়ে শেষ হল মৌসুমের শেষ এল ক্লাসিকো

চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালের পরে ক্লাব ফুটবলে সারা বিশ্বের সবচেয়ে আলোচিত ম্যাচ হল এল ক্লাসিকো। যদিও এই মৌসুমের শেষ এল ক্লাসিকো গায়ে মরা ম্যাচের তকমা আগেই সেটে বসেছিল। আর চার ম্যাচ আগেই বার্সেলোনার লিগ শিরোপা নিশ্চিত করা আর রিয়ালের শিরোপা দৌড় থেকে ছিটকে যাওয়াই এর মূল কারন।

কিন্তু এই মরা এল ক্লাসিকোই যে মাঠের লড়াইয়ে এক মৌসুমের সেরা এল ক্লাসিকোর মর্যাদা পাবে তা কেই বা ভেবেছিল।

জমজমাট এক লড়াইয়ে শেষ হল মৌসুমের শেষ এল ক্লাসিকো
Source: enihal – DeviantArt

ম্যাচের শুরুই হয় আত্নমর্যাদার লড়াই দিয়ে। প্রথা অনুযায়ী লিগ শিরোপা জেতা বার্সেলোনাকে গার্ড অব অনার দেয়ার কথা ছিল রিয়াল মাদ্রিদের, কিন্তু সেটা না দেওয়ার কথা আগে থেকেই জানিয়ে রেখেছিল রিয়াল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু শিরোপা জয়ী দল তো আর গার্ড অব অনার ছড়া মাঠে নামতে পারে না, তাই বার্সেলোনার কোচিং স্ট্যাফরাই নিজেদের দলকে গার্ড অব অনার দিয়ে মাঠে নামায় এ দিন।

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমন পালটা আক্রমনে শুরু হয় খেলা। ১০ মিনিটের সময় সার্জিও রবার্তোর ক্রসে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন সুয়ারেজ। এই লিড অবশ্য বেশিক্ষন ধরে রাখা হয় নি তাঁদের, ১৪ মিনিটেই বেনজামার এসিস্টে দলকে ম্যাচে ফেরান রোনালদো। তারকাদের নামের ভিড়ে মেসিই বা পিছিয়ে থাকেন কিভাবে? ৫২ মিনিটে অসাধারণ এক কারুকার্যে সুয়ারেজের এসিস্টে গোল করে দলকে আবারো লিড এনে দেন মেসি। এত বড় বড় নামের ভিড়ে বাকি ছিল শুধু বেলের নাম। আর সেটাও পূরণ হয়ে যায় ম্যাচের ৭২ মিনিটে।

শুধু গোলের দিক থেকেই তারকারা এগিয়ে ছিলেন না। কার্ডের দিক থেকেও এগিয়ে ছিলেন মোটামুটি সব বড় তারকারা। ম্যাচের ১২ মিনিটে প্রথম হলুদ কার্ড দেখেন নাচো, দ্বিতীয়টি দেখেন ভেরেন ৩১ মিনিটে। কিন্তু ম্যাচের সবচেয়ে বড় যুদ্ধক্ষেত্রটি শুরু ৪৪ মিনিটে। ফলো থ্রুতে রিয়াল গোলকিপার নাভাসের সাথে হালকা সংঘর্ষ হয় সুয়ারেজের। আর সেটা নিয়েই ধাক্কাধাক্কি আর কথার লড়াইয়ে জড়ান সুয়ারেজ আর র‍্যামোস। দুজনেই দেখেন হলুদ কার্ড। পরের মিনিটেই যেন কার্ড দেখার ইচ্ছাতেই র‍্যামোস কে ট্যাকেল করেন মেসি, দেখেন হলুদ কার্ড। আর প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ের শেষ মিনিটে মার্সেলোকে চড় মেরে সরাসরি লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন সার্জিও রবার্তো। আর দ্বিতীয়ার্ধে ৭৬ থেকে ৮৫ মিনিটে হলুদ কার্ড দেখেন বেল, মার্সেলো আর রাকিতিচ।

জমজমাট এক লড়াইয়ে শেষ হল মৌসুমের শেষ এল ক্লাসিকো
Source: YouTube

যদিও ম্যাচের রেফারিং নিয়ে দুই দলই অসন্তুষ্ট ছিল। র‍্যামোস তো রেফারিকে প্রভাবিত করার পেছনে ম্যাচ শুরুর আগে মেসি আর রেফারির কথোপকথনকেও দায়ী করে ফেললেন ম্যাচ শেষে। আসলে এল ক্লাসিকোর মত আবেগময় লড়াইয়ে খেলোয়াড়েরা অনেক আবেগী কথাই বলে থাকেন।

ম্যাচের আরেক উল্লেখজনক ঘটনা হল দ্বিতীয়ার্ধে রোনালদোর মাঠে না ফেরা। সবাই আন্দাজ করেছিল হয়তো চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালের জন্যে রোনালদোকে আগলে রাখছেন রিয়াল বস জিদান। তবে ম্যাচ শেষে জানা গেল ইঞ্জুরিই এর পিছনে মূল কারন। তবে জিদান এও জানিয়েছেন যে রোনালদোর ইঞ্জুরি সমস্যাটা তেমন জটিল কিছু না।

কিন্তু সবশেষে এটা যে একটা খেলা আর সেটার মহোত্ব প্রমান করার জন্যেই যেন বিদায়ী ইনিয়েস্তাকে আলিঙ্গন করার জন্যে টানেলে পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করলেন রিয়াল বস জিদান আর দুই কিংবদন্তীর আলিঙ্গনের মাধ্যমেই শেষ হয় এল ক্লাসিকো নামের এক মহারণ।

, , , , , , , , , ,