সর্বনিম্ন স্কোর: ক্রিকেটের কিছু লজ্জাজনক ইনিংস

এক ইনিংসে দলীয় সর্বনিম্ন স্কোর যেকোন দলের জন্যই লজ্জাজনক।এটি কোন বিষয়ই না যে দেশটি কি। কারণ একটি দল পুরো বিশ্বের কাছে তার দেশকে উপস্থাপন করে।

২ দিন আগে পুরো ক্রিকেট বিশ্ব দেখেছে কিভাবে ইংল্যান্ড দলে মাত্ত্র ৫৮ রানে অলআউট হয়েছে। এটিই প্রথম বার নয়। এটি ইংল্যান্ডের জন্য ষষ্ঠ সর্বনিম্ন স্কোর এবং নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম।

ক্রিকেটের কিছু লজ্জাজনক ইনিংস
Source: youthensnews.com

তারা কেবলমাত্ত্র ২০.৪ ওভার মোকাবেলা করেছিল যা কিনা ১৯৫০ সালের পর থেকে যেকোন দলের এক ইনিংসে মোকাবেলা করেছে অষ্টম সর্বনিম্ন ওভার। তারা ২৭ রানের মধ্যে প্রথম ৯ উইকেট হারায়। আবার ৫ ব্যাটসম্যান কোন রান যোগ না করেই আউট হয়েছে।

অবশ্যই আইসিসির কাছে এরকম অসংখ্য রেকর্ড রয়েছে। মজার বিষয় হচ্ছে নিউজিল্যান্ডেরও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সর্বনিম্ন স্কোর আছে। এটি সবসময়ই লজ্জাজনক স্কোরের মধ্যে প্রথমেই থাকবে যতক্ষণ না আরেকটি দল এসে তাদের রেকর্ডটি ভাঙছে।

১৯৯৫ সালের ২৫শে মার্চ নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কেবল ২৬ রানে আলআউট হয়ে যায়। তারা এই স্কোর করতে ২৭ ওভার ব্যাট করেছিল এবং এই ঘটনাটি ম্যাচের ৩য় ইনিংসে ঘটে।

ওই ম্যাচে বার্ট সারক্লিফ নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ৩য় ইনিংসে ব্যাট করা একমাত্ত্র ব্যাটসম্যান ছিলেন যিনি ১০ এর অধিক রান করেছিলেন। তার ব্যাক্তিগত সংগ্রহ ছিল ১১ রান।

অন্যান্য স্কোরগুলো তখন টেলিফোন নাম্বারের মত লাগছিল। এটা এমন ছিলঃ ১০১১৭৫০০০০। ওই ম্যচের আরেকটি চমকপ্রদ ঘটনা হচ্ছে সেই ম্যাচ অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে হয়েছিল। ইংল্যান্ড ২ ম্যাচের সেই সিরিজ ২-০ তে জিতেছিল।

ইহাকেই বা আর কি বলা যায়! সাউথ আফ্রিকা তার নামের পাশে ২য়, ৩য়, ৪র্থ এবং ৫ম স্থান দখল করে রেখেছে। এর পরের স্থানই হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার।

অস্ট্রেলিয়ার সর্বনিম্ন স্কোর হচ্ছে ৩৬ এবং এর পরেরটি ৪২। মজার ব্যাপার হচ্ছে এই দুইটি স্কোরই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হয়েছিল। ভারতও লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের সর্বনিম্ন স্কোর ৪২ রান করে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের সর্বনিম্ন স্কোর ৪৭ রান করে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে, পাকিস্তান ৪৯ করে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে, জিম্বাবুয়ে ৫৪ করে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে এবং শ্রীলংকা ৭১ রান করে পাকিস্তানের বিপক্ষে।

ভাগ্যক্রমে বাংলাদেশ সেই ইতিহাসের পাতার ৪৪ নং অবস্থানে আছে। তারা শ্রীলংকার বিপক্ষে ৬২ রান করেছিল। ওই ম্যাচে কেবলমাত্ত্র রাজিন সালেহ ২১ রান করেছিল এবং বাকিরা উল্লেখযোগ্য বলার মত কোন রানই করতে পারে নি। ৩ জন ব্যাটসম্যান ০ রানে আউট হয়েছিল।

ওই ম্যাচে সাংগাক্কারা ২০০ এবং মোহাম্মদ আশরাফুল একটি শতক করেছিল।

এখানে দলীয় সর্বনিম্ন স্কোরের একটি তালিকা দেওয়া হল:

সর্বনিম্ন স্কোরের একটি তালিকা
সর্বনিম্ন স্কোরের একটি তালিকা l Source: ESPN.com

নাটকীয়ভাবে সকল বড় দলই এই গ্রুপে আছে। তাদের প্রত্যেকরই খারাপ রেকর্ড আছে। এটা শুধুমাত্ত্র একটি পরিসংখ্যান। কেউই এই তথ্য দিয়ে একটি দলকে পরিমাপ করতে পারে না।

যদি কেউ বর্তমান বাংলাদেশ এবং তাদের পরিসংখ্যান দেখে, তারা কল্পনাই করতে পারবে না যে বাংলাদেশ দল কতটা উন্নতি করেছে।

আপনি যদি একজন সত্যিকারের ক্রিকেটপ্রেমী হন তাহলে একটি দলকে বিচার করা কখনোই ভাল হবে না। এই খেলায় যেকোন কিছুই ঘটতে পারে। পুরো ক্রিকেট দুনিয়া এখন পর্যন্ত অনেকগুলো “আপসেটের” সাক্ষী হয়েছে।

, , , , , , ,