কমনওয়েলথ গেমস ২০১৮: বাকির রুপা জয় ও খামখেয়ালী টিম ম্যানেজমেন্ট

কমনওয়েলথ গেমসে গতকাল বাংলাদেশের জন্যে ছিল দুই ধরনের অনুভূতির দিন। একটি হল ১৬ বছর পর আরেকজন বাংলাদেশীর কমনওয়েলথ গেমসে সোনা জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়েও তা হাত ছাড়া হওয়ার আফসোস আর আরেকটি হল অপ্রত্যাশিত রুপা জয়ের আনন্দ।

ছেলেদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে দেশের হয়ে কমনওয়েলথে এবারের প্রথম পদক রুপা জিতেছেন গ্লাসগোতে আগের বারের রুপা জয়ী আব্দুল্লাহেল বাকি। এই আনন্দঘন মূহুর্তের পরই জানা যায় টিম ম্যানেজমেন্ট সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে বাকি তার এবারের মূল ইভেন্ট ৫০ মিটার রাইফেলে অংশই নেবেন না। অবাক করার মত ঘটনার এখানেই শেষ না, টিম ম্যানেজমেন্টের গাফলতিতে নিজ নিজ ইভেন্টে অংশগ্রহনের সুযোগ হারানো দুই বক্সারকে আগে ভাগেই দেশে পাঠিয়ে দিয়ে “খরচ” বাচিয়েছে বিওএ (বাংলাদেশ অলেম্পিক এসোসিয়েশন)

কমনওয়েলথ গেমস ২০১৮
Source: thewest.com.au

২০০২ তে ম্যানচেস্টারে সোনা জয়ী আসিফ হোসেন খানের পর বাংলাদেশের শুটিং সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন এই আব্দুল্লাহেল বাকিই। অথচ গতবার গ্লাসগোতে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে রুপা জয়ী এই শুটারকে ছাড়াই বাংলাদেশ এবারের ১০ মিটার ইভেন্টে অংশ নিতে চেয়েছিল। ম্যানেজমেন্টের এবারের ভরসা ছিল রিসালাত হোসেন আর ফজলে রাব্বি মুন্না। বাকিকে অস্ট্রেলিয়াগামী দলে কোচ রেখেছিলেন ৫০ মিটার রাইফেলের জন্যে।

১০ মিটারের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন রিসালাত ব্যর্থ হন গত ডিসেম্বরে জাপান এশিয়ান এয়ারগান চ্যাম্পিয়নশিপে। ২৬ জনের মধ্যে ১৬ তম হওয়া রিসালাতের থেকে ভাল স্কোর করে ১২ তম হন বাকি। এতেই হারানো আত্নবিশ্বাস কিছুটা ফিরে পান আর দেশে ফিরে শুরু করেন নিরলস অনুশীলন। কিন্তু তাও জানতেন না অস্ট্রেলিয়াতে তার প্রিয় ১০ মিটার ইভেন্টে সুযোগ পাবেন কিনা। সুযোগটা আসে অনুশীলনে রিসালাতের ক্রমাগত খারাপ স্কোরের করার কারনে।

কমনওয়েলথ গেমস ২০১৮
Source: SBS

বাছাইপর্বে ৬ষ্ঠ হয়ে ফাইনালে ওঠেন। আর ফাইনালে মূলত তার আর অস্ট্রেলিয়ান ড্যান স্যাম্পসনের সোনার লড়াইটাই ছিল সবচেয়ে বড় আকর্ষন কারন ব্রোঞ্জ জয়ী ভারতীয় রবি কুমার আগেই সোনাই দৌড়ে পিছিয়ে পরেছিলেন। “প্রতিযোগিতার সময় পাশের শুটারের স্কোরের দিকে তাকাতে নেই” কোচের এই মন্ত্র এক মূহূর্তের জন্যে ভুলে গিয়ে শেষ শটের আগে স্যাম্পসনের করা স্কোরের দিকে তাকিয়ে বসেন বাকি। স্যাম্পসন তার শেষ শটে ৯.৩ স্কোর করে বাকির জন্যে শেষ শটের সমীকরণটা দাড় করান ১০.১ এ। কিন্তু আগের শটে ১০.৪ স্কোর করা বাকি প্রত্যাশার চাপ নিতে কিছুটা ব্যর্থ হন। শেষ শটে করেন ৯.৭ স্কোর। সাথে সাথে পদক তালিকার অবস্থান বিন্যাসটাও চূড়ান্ত হয়ে যায়। আগের বারের রুপার পদকটি ধরে রাখেন।

রুপা জেতার পর বাকি বলেন, ” সব সময় নিখুঁত শট মারার চেষ্টা করেছি। আসলে ভুল করে স্যাম্পসনের শেষ শটটা দেখে ফেলি। তখন সেটাই আমার মাথায় ঘুরছিল। ওর শট দেখে একটু চাপে পড়ে যাই। যদিও এটা খেলারই অংশ। যদি তখন ১০.১ মারতাম তাহলে আমার পক্ষে চলে আসতো ফল।”

কিন্তু এর পরেই জানা যায় যেই ইভেন্টের জন্যেই তাকে মূলত অনুশীলন করানো হয়েছিল সেই ৫০ মিটার থ্রি পজিশনে আর নামতে হবে না বাকিকে। যদিও দেশের সেরা শুটাররা বরাবরই একাধিক ইভেন্টে অংশগ্রহণ করে থাকেন, এতে পদক জয়ের সম্বাবনাও আরো বেশি থাকে। কিন্তু ম্যানেজমেন্টের এই সিদ্ধান্ত বিস্ময়ই উপহার দিয়েছে জনমনে।

Source: Click Ittefaq

এদিকে এই ঘটনার আগের দিনও বাংলাদেশের কমনওয়েলথ গেমসে সফরকারী টিম ম্যানেজমেন্ট আরো এক বিস্ময়েরই জন্ম দিয়েছেন। নিয়ম অনুযায়ী যে কোন ইভেন্টের আগের দিন সেই ইভেন্টের সকল দলের কোচ বা ম্যানেজারকে টেকনিকাল কমিটির সভায় নির্দিষ্ট সময়ে হাজির হতে হয়।

আর বাংলাদেশ বক্সিং দলের কোচ আর ম্যানেজার ছিলেন একজনই। যিনি ঐ সভায় হাজির হতে ব্যর্থ হওয়ায় নিয়ম অনুযায়ী বক্সিং ইভেন্ট থেকেই কেটে দেওয়া হয় বাংলাদেশের নাম। কই এই ব্যর্থতার দায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়ে বিচারের আওতায় আসবেন কোচ বা সংশ্লিষ্ট অন্য কোন কর্মকতা তা না উলটো রিং এ অংশগ্রহণের সুযোগ হারানো দুই বক্সারকেই খরচ বাঁচাতে পাঁচ দিন আগে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

গ্যালারিতে খেলা দেখে কিছুটা দুঃখ কমতে পারতো আশাহত দুই বক্সারের সাথে হয়তো কিছু শিখতেও পারতেন। এ বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে আবেগী কন্ঠে বক্সার আল আমিন বলেন, ” আমরা খেলাটা দেখতেও পারলাম না। দেশে ফেরার বিমানে ওঠার কথা ছিল ১০ এপ্রিল, কিন্তু পাঁচ দিন আগেই পাঠিয়ে দেয়া হল। কি বলবো ভীষণ কষ্ট পাচ্ছি।”

অথচ বিওএ এর অনেক কর্মকতাই বুকে নানা পদবির পাস কার্ড ঝুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার গোল্ড কোস্টে। আর খেলোয়াড়েরাই আজ অবাঞ্ছিত আর বোঝা। আসুন আমরা এক্ষেত্রেও অবাক না হয়ে মেনে নেই, আর বলি কিচ্ছু করার নেই কর্মকর্তারা বিদেশ।

, , , , , ,