উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ: রোমান রুপকথা আর রোনালদো বিতর্কে শেষ হল কোয়াটার ফাইনাল

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কেয়াটার ফাইনাল যুদ্ধ শেষ হল। যেভাবে শেষ হল একে যুদ্ধই বলা চলে। রোমার কাছে অলৌকিক ভাবে হেরে বার্সার বিদায় আর রিয়ালের শেষ মুহুর্তে রেফারির কাছ থেকে উপহার পাওয়া পেনাল্টিতে সেমি নিশ্চিত করা সবই ছিল এই নাটকীয় মহারণের অংশ একটা অংশ।

উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ
Source: 9ja Fans

চলুন তাহলে এই নাটকীয় মহারণের দৃশ্যাবলীতে পদার্পন করা যাক।

রোমা বনাম বার্সেলোনা: ()

রোমা বনাম বার্সেলোনা
Source: Goal.com

নিজেরে মাঠে সেমিতে ওঠার কাজটা অর্ধেক সেরে রেখেই রোমে গিয়েছিল কাতালানরা। তবে বাকি অর্ধেকটা পথ যে তাঁদের জন্যে কি অপেক্ষা করছে তা কোন কাতালান সমর্থক দুঃস্বপ্নেও চিন্তা করে নি। ৪-১ গোলে জেতা প্রথম লেগের ঐ একমাত্র হজম করা গোলটি যে ক্যান্সারে পরিনত হবে তাই বা কে ভেবেছিল।

রোমান রুপকথার শুরুটা হয় এডিন জেকোর বুদ্ধিদিপ্ত এক ফিনিসিং এর মাধ্যমে মাত্র ৬ মিনিটেই। আর ৫৮ মিনিটে পিকের অবৈধ ট্যাকেলকে গোলে রুপান্তর করেন প্রথম লেগের আত্নঘাতী গোল করা ডি রসি। এবং রুপকথা চিরায়ত বাস্তবতায় রুপ নেয় মানোলাসের হেডে। দুই ম্যাচ মিলে এগ্রিগেন্টে উভয় দলের গোল সমান হলেও নিজেদের মাঠে হজম করা গোলই বার্সার যমে পরিনত হয়।

রিয়াল মাদ্রিদ বনাম য়্যুভেন্তাস: ()

রিয়াল মাদ্রিদ বনাম য়্যুভেন্তাস
Source: Sports Illustrated

আরো একটি ইতালিয়ান রুপকথার রাত হতে পারতো বার্নাব্যুর রিয়াল- য়্যুভেন্তাসের দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটি। কিন্তু ম্যাচ শেষের ১৫ সেকেন্ড আগে রেফারির বিতর্কিত পেনাল্টিই সেই সম্ভাবনার গায়ে পানি ঢেলে দেন।

এদিন রিয়ালের মাঠে য়্যুভেন্তাসের উড়ন্ত সূচনা হয় ২ মিনিটেই মারিও মাঞ্জুকিচের গোলে। দ্বিতীয় গোলটিও আসে এই মাঞ্জুকিচের হেডে। আর মাতুইদি যখন ৬০ মিনিটে য়্যুভেন্তাসের ৩য় গোলটি করেন তখন বার্নাব্যুর স্প্যানিশ দর্শকরাও আরেকটি ইতালিয় মহাকাব্যের আশংকায় স্তম্ভিত হয়ে যায়। বাকি সময়ে গোলের জন্যে হন্যে হয়ে থাকা রিয়াল শুধু হতাশাই উপহার দিচ্ছিল তার ভক্তদের।

কিন্তু খেলা শেষের মাত্র ১৫ সেকেন্ড আগে রিয়ালের লুকাস ভাসকেজকে ধাক্কা দিয়ে বল ক্লিয়ার করার চেষ্টা করেন য়্যুভেন্তাস ডিফেন্ডার মেধি বেনাতিয়া আর এতেই বেজে ওঠে রেফারির পেনাল্টির বাঁশি। আর এতেই ক্ষেপে প্রতিবাদ করতে গিয়ে লাল কার্ড দেখেন বুফন। আর সেই পেনাল্টিকে গোল বানিয়ে মহানাটকীয় ম্যাচের চড়ম নাটকীয় সমাপ্তি এনে দেন আগের লেগে বিশ্ব নন্দিত গোল করা রোনালদো

ম্যান সিটি বনাম লিভারপুল: ()

ম্যান সিটি বনাম লিভারপুল
Source: Zimbio

আগের লেগে নিজেদের মাঠে সিটিকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে সেমির রাস্তাটা অনেকটা পরিস্কার করেই মাঠে নেমেছিল লিভারপুল। কিন্তু ম্যাচের ২ মিনিটেই গোল করে অন্য রকম কিছুরই আভাস দিচ্ছিল সিটিজেনরা। প্রথমার্ধের পুরো মাঠ নিয়ন্ত্রণ করা সিটি খেই হারিয়ে ফেলে দ্বিতীয়ার্ধে।

ম্যাচের ৫৬ আর ৭৭ মিনিটে সালাহ আর ফারমিনিহো গোল কিরে এবারের লিগ চ্যাম্পিয়ন সিটিকে এক প্রকার অপমান করেই চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বিদায় করে দেয় অলরেডরা।

বায়ার্ন মিউনিখ বনাম সেভিয়া: ()

বায়ার্ন মিউনিখ বনাম সেভিয়া
Source: CBS Sports

আগের লেগের স্কোর কার্ডে চড়েই এবারের সেমি গেছে বায়ার্ন। নিজেদের মাঠে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচটিতেও এবারের বুন্দেসলিগার বায়ার্নকে খুঁজে পাওয়া গেল না। সারা ম্যাচেই নিজেদের রক্ষনভাগ ঠিক রেখে কাউন্টার এ্যাটাকে খেলা বায়ার্ন ম্যাচে কোন গোল না পেলেও বেশ কিছু ভাল সুযোগ তৈরি করেছিল। আর সেভিয়ার আক্রমনও এদিন আর গন্তব্যের দেখা পায় নি। তাই এই ঘটনাহীন ম্যাচের সবচেয়ে বড় ঘটনাই হল শেষ মিনিটে ফাউল করে সেভিয়ার জে কোররিয়ার দেখা লাল কার্ড।

, , , , , , , , , , , , ,