আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ঃ দূর্দান্ত জয়ে টাইগারদের শুভ সূচনা

এক অসাধারন জয় দিয়ে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ এর শুভ সূচনা করল বাংলাদেশ টাইগাররা। প্রকৃতপক্ষে, এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের জন্যে এর চেয়ে ভাল শুরু আর হতেই পারে না। বর্তমান বিশ্বের ওয়ানডে ক্রিকেটের ৩ নম্বর দল দক্ষিন আফ্রিকাকে ২১ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করাটা আসলেই টাইগারদের জন্যে বিশেষ কিছু।
Source: India Today
দিনের শুরুটা হয়েছিল ওভালে টস দিয়ে। টায়ারের অধিনায়ক মাশরাফি টসে পরাজিত হলেও, বিস্ময়করভাবে প্রোটিয়াস অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস ব্যাটসম্যানের উপর বড় সংগ্রহ করার বিকল্পটি না নেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পরিবর্তে, তিনি বাংলাদেশকে যা করতে চান তা করার অনুমতি দেয়।
বাংলাদেশ মাত্র ৯ ওভারে বোর্ডে ৬০ রানে তুলে উড়ন্ত সুচনা করে। এর পরপরই তারা উভয় উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানকে দ্রুত হারায়। কিন্তু সাকিব ও মুসফিক ক্রিজে ফিরতে পারেন। ১৪১ বলে জুটিতে তারা ১৪২ রানের জুটি গড়ে তোলে। প্রকৃতপক্ষে, সেই অংশীদারিত্ব বাংলাদেশ টাইগারদের গতি বাড়ায়।

৩০ ওভারে তাদের উভয়ই আউট হয়ে যায়, কিন্তু তারা তাদের দলকে এমন আরামদায়ক অবস্থানে নিয়ে যায় যেখানে বোর্ডে সহজেই লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা যায়। সাকিব আল হাসান ৮৪ বলে করেন ৭৫ রান। মুশফিকুর রহিম ৭৪ (৮০) করে আউট হন।
এই দুটি আউট এর পরে টাইগার ব্যাটিং এ ছোটখাটো একটি ধসে নামে। তখন মনে হচ্ছিল বাংলাদেশের পুজিটা হয়তো বেশি বড় হবে না।
Source: India TV
কিন্তু মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মোসাদ্দেক হোসেনকে ধন্যবাদ। আক্ষরিক অর্থে দুটি জুটি প্রটিয়াদের বোলিং আক্রমনকে গুড়িয়ে দিয়ে ইনিংসের শেষ ২৪ বলে ৫৪ রান যোগ করে। আর এতে করেই টাইগাররা স্কোর কার্ডে তাদের সর্বোচ্চ ওডিআই স্কোর ৩৩০-৬ তোলে।
৩৩১ রানের লক্ষে খেলতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকা ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ৩০৯ রান করতে সক্ষম হয়। প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানদের প্রায় সবাই ই ভাল শুরু করেছিল কিন্তু কেউই বড় ইনিংস খেলতে না পারায় দিন শেষে পরাজয় বরণ করতে হয় তাদের দলকে।
প্রোটিয়া অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস তার দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬২ রান করেন। মুস্তাফিজুর রহমান ১০ ওভারে ৬৭ রানে ৩ উইকেট নেন।
বিশ্বের এক নম্বর ওডিআই অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ব্যাটিং এ ৭৫ রান করার পর বল হাতে করেন  ১০-০-৫০-১।  প্লেয়ার অফ দ্য ম্যাচ হিসেবে তাকে বেছে নিতে এই পারফর্মেন্সই যথেষ্ট ছিল।
এই সময় সাকিব 5000 রান এবং 250 উইকেটের ম্যাজিক ডাবল সেটি সম্পূর্ণ করতে দ্রুততম হন, একটি এক্সক্লুসিভ পাঁচ-ম্যান ক্লাব যোগদান করেন।
Source: Outlook India
বাংলাদেশ টাইগার্স অধিনায়ক মাসরাফি মুর্তজা বলেন, টস হারের পরেও আমরা প্রথম ব্যাট করতে পেরে আনন্দিত ছিলাম, হ্যাঁ, কিছু সন্দেহ ছিল কিন্তু আমরা জানতাম এটি একটি ব্যবহৃত উইকেট ছিল, তাই ব্যাটিং খারাপ বিকল্প হবে না। মুশফিকুর সবসময়ই খেলেন। ইনিংসের মতোই, সাকিব খুব ভাল ব্যাটিং করেছিলেন। মাহমুদুল্লাহ ও মোসাদ্দেকের সঙ্গে আমরা শেষ হয়ে গেলাম। আমরা জানতাম আমাদের সঠিক বোলিংয়ে বোলিং করা হয়েছে, আমাদের বোলারদেরকে উইকেট পরিবর্তন করতেই আমরা আমাদের বোলারদের পরিবর্তন করতে থাকি। ভাল জিনিস আমরা সক্ষম ছিলাম। ভাল করতে, স্পিনাররা স্বর সেট করে। "
পরাজত দলের অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস বলেন, "আজ পরিকল্পনা অনুযায়ী নয়। লুঙ্গি আহত হওয়ার সাথে আদর্শ ছিল না, কিন্তু 330 সমান ছিল। আমাদের কাছ থেকে অসাধারণ পারফরম্যান্স না। ফিরে আসছি, না, আমি চাই না।" প্রথম বোলিংয়ের আগেই বোলিং করা হয়েছিল, তবে চিন্তা ছিল, পৃষ্ঠের গতিবেগ আরও বাড়বে এবং যদি কোন উপমহাদেশের পক্ষে বোর্ডে রান আসে তবে তারা পরে এটি সঙ্কুচিত করতে পারে। "
, , , , , ,